বৃহস্পতিবার , ১৪ নভেম্বর ২0১৯, Current Time : 2:23 am




অর্থ জ্ঞান শ্রম দিয়ে বাফা’র পাশে থাকার আহ্বান

সাপ্তাহিক আজকাল : 26/10/2019


আজকাল রিপোর্ট
একদিনের জন্য নয়, সারা বছর পাশে থাকুন। হাত বাড়িয়ে দিন। কথা, কাজ, জ্ঞান, অর্থ বা শ্রম যে কোন কিছু নিয়েই পাশে থাকতে পারেন বাফা’র। তহবিল সংগ্রহের জন্য আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এমন আহ্বান জানালেন বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব ফাইন আর্টসের (বাফা) প্রেসিডেন্ট ফরিদা ইয়াসমিন। গত ১৮ অক্টোবর ব্রঙ্কসের স্টার্লিং এভিনিউর বাংলাবাজার সংলগ্ন গোল্ডেন প্যালেসে বাফা এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ব্যবসায়ী, সংস্কৃতিকর্মী, কবি, সাহিত্যিক সাংবাদিক, প্রাবন্ধিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার শতাধিক মানুষ উপস্থিত হন অনুষ্ঠানে।
শুরুতেই বাফার এ যাবৎ কালের কর্মকান্ড তথ্য চিত্রের মাধ্যমে প্রদর্শন করা হয়। সেখানে দেখানো হয়, বাফা কমিউনিটির সীমানা ছাড়িয়ে কিভাবে আমেরিকার মূলধারায় প্রবেশ করেছে। আমেরিকানদের কাছে, বিশ্ববাসীর কাছে বাংলাদেশি সংস্কৃতি তুলে ধরছে। আরও বড় কাজের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে সংগঠনটি। বছরে এখন বাফা’র খরচ প্রায় ৬৪ হাজার ডলার। কিন্তু তাদের তেমন কোন আয় নেই। আর এর পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন বাফা’র কর্ণধার। অনুষ্ঠানে উপস্থাপক, আলোচকরা বলেন, কেন বাফাকে সাহায্য করবেন আপনার মন আপনাকে এমন প্রশ্ন করতেই পারে। এর উত্তরে আমরা বলতে চাই আপনি যদি বাফার জন্য কিছু করেন সেটা আপনি মূলত বাফার জন্য করছেন না। করছেন নিজের জন্য। দেশের জন্য। একবার ভাবুন তো আমাদের সন্তানরা যদি বাঙলা ভুলে যায়, বাংলাদেশের সংস্কৃতি ভুলে যায় আগামীতে তাহলে আমরা কাদের মাঝে বেঁচে থাকবো? বাফায় এসে আমাদের সন্তানরা বাংলা ভাষা শিখছে, কথা শিখছে, নাচ, গান আবৃত্তি শিখছে। বাফা’র নিরন্তন চেষ্টা করে যাচ্ছে ওরা যাতে শেখে। বাচ্চাগুলো সারাদিন স্কুল-কলেজে থাকে। ছুটি পেলে ছুটে আসে। শ্রম দেয়। ঘাম ঝরায়। আমাদের যা আছে তা নিয়ে যদি আমরা ওদের পাশে দাঁড়াই ওরা খুব খুশি হবে। ওদের উৎসাহ বাড়বে। আমাদের সন্তানরা এখানে যারা চার দেয়ালে বন্দী জীবন কাটায়। ওদের অনেক বুঝিয়েও সেখান থেকে বের করা যায় না। কিন্তু বাফা মনে করে পরিবেশ তৈরী করে দিতে পারলে তারা অবসরে ঘর ছেড়ে, গেম খেলা, কার্টুন দেখা ফেলে এখানে ছুটে আসবে। শেকড়ের সংস্কৃতি চর্চা করে একদিন ওদের আত্ম জাগরণ ঘটবে। মানসিক বিকাশ ঘটিয়ে ওরা হবে আলোকিত মানুষ।
অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ওয়েল কেয়ার হেলথ প্ল্যানের সিনিয়র ম্যানেজার সালেহ আহমেদ, বিশিষ্ট লেখক-সাংবাদিক হাসান ফেরদৌস, বাফার প্রধান নৃত্য নির্দেশক নৃত্যগুরু অনুপ কুমার দাশ, মুক্তিযোদ্ধা তোফায়েল আহমেদ চৌধুরী, বাংলাদেশি-আমেরিকান কমিউনিটি কাউন্সিলের সভাপতি মোহাম্মদ এন মজুমদার, আমেরিকান-বাংলাদেশি ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন ইনক’র সভাপতি আব্দুস শহিদ, সাপ্তাহিক জনতার কন্ঠ’র সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, ভোরের কাগজের যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি শামীম আহমেদ, বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সহ সাধারণ সম্পাদক সিরাজ উদ্দিন আহমেদ সোহাগ, খলিল বিরিয়ানী হাউজের কর্ণধার মোঃ খলিলুর রহমান, স্টারলিং ফার্মেসির পরিচালক মোহাম্মদ আলী, কমিউনিটি অ্যাক্টিভিষ্ট সাখাওয়াত আলী, আহসান হাবিব, এডভোকেট হেমায়েত উদ্দিন তালুকদার, এ ইসলাম মামুন, মোতাশিম বিল্লাহ হোসেন তুষার প্রমূখ। সঞ্চালনায় ছিলেন সাহিত্য একাডেমির পরিচালক মোশারফ হোসেন।
বাফা শিল্পীদের মনোমুগ্ধকর নৃত্যানুষ্ঠান ছাড়াও জনপ্রিয় শিল্পী ড. তনিমা হামিদ ও আলী মাহমুদের অসাধারণ সঙ্গীত পরিবেশনা দর্শকরা দারুণভাবে উপভোগ করেন। বর্ণিল এ অনুষ্ঠান উপভোগ করতে দূর দুরান্ত থেকে ছুটে আসেন নতুন প্রজন্মসহ বহুসংখ্যক মানুষ।
নৃত্যানুষ্ঠান পরিকল্পনা ও পরিচালনায় ছিলেন অনুপ কুমার দাশ। পোষাক পরিকল্পনায় ছিলেন অনুপ কুমার দাশ ও ফরিদা ইয়াসমিন। তবলায় ছিলেন তপন মোদক, যন্ত্র সঙ্গীতে ছিলেন শহিদ উদ্দিন। ব্যবস্থাপনায় ছিলেন শামীম আরা বেগম, ফারজানা ইয়াসমিন, শিউলি হক প্রমুখ। মারজিয়া স্মৃতির নেতৃত্বে বাফা’র ছাত্রীরা তাদের বিস্তারিত কর্মকান্ড তুলে ধরেন।

 



Chief Editor & Publisher: Zakaria Masud Jiko
Editor: Manzur Ahmed
37-07 74th Street, Suite: 8
Jackson Heights, NY 11372
Tel: 718-565-2100, Fax: 718-865-9130
E-mail: [email protected]
� Copyright 2009 The Weekly Ajkal. All rights reserved.