বৃহস্পতিবার , ১৪ নভেম্বর ২0১৯, Current Time : 2:04 am
  • হোম » এ সপ্তাহের খবর »
    মধ্য নভেম্বর থেকে বেকারত্ব শুরু
    শীতে দেশে যাচ্ছেন কয়েক হাজার নির্মাণ শ্রমিক




মধ্য নভেম্বর থেকে বেকারত্ব শুরু
শীতে দেশে যাচ্ছেন কয়েক হাজার নির্মাণ শ্রমিক

সাপ্তাহিক আজকাল : 26/10/2019

বিশেষ প্রতিনিধি –
প্রতি বছরের মত এবারও শীতের সময় (উইন্টার) বাংলাদেশে যাচ্ছেন নিউইয়র্কের কয়েক হাজার নির্মাণ শ্রমিক। মধ্য নভেম্বর থেকে নির্মাণ কাজ স্লথ হয়ে যাওয়ার কারণে আগামী গ্রীষ্ম (সামার) পর্যন্ত বেকার থাকতে হবে নির্মাণ শ্রমিকদের। তাই এ সময়ে মাতৃটানে দেশে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন হাজার হাজার বাংলাদেশি। তাদের অনেকেই অগ্রিম টিকিট কেনাও শুরু করেছেন। কেউ কেউ স্বজনদের জন্য উপহার সামগ্রী কিনছেন।
প্রসঙ্গত: নিউইয়র্কের ব্রুকলিনেই অন্তত ৩০ হাজার বাংলাদেশি শ্রমিক রয়েছেন যারা সিটি বা ব্যক্তি মালিকানাধীন নির্মাণ খাতে শ্রম দিয়ে থাকেন।
নির্মাণ খাতের ঠিকাদার সামছুদ্দীন আজাদ সাপ্তাহিক আজকালকে বলেন, মধ্য নভেম্বরের পর থেকে নির্মাণ খাতে কাজ কমে আসে। ডিসেম্বরে গিয়ে প্রায় বন্ধই থাকে। এসময় নির্মাণ খাতের শ্রমিকরা দেশে গিয়ে থাকেন। বিশেষ করে সামারে যারা দেশে যেতে পারেননি তারাই শীতে দেশে যান। এবারও তার ব্যতিক্রম নয়।
তিনি বলেন, প্রায় প্রতিদিন সন্ধ্যায় ব্রুকলিনের রেস্টুরেন্টগুলোতে নির্মাণ শ্রমিকরা আড্ডা দেন। শীতের সময় এ আড্ডা প্রলম্বিত হয়। কারণ সকালে কাজে যাওয়ার তাড়া না থাকায় মধ্যরাত পর্যন্ত তারা আড্ডা দেন। বলতে গেলে রেস্টুরেনগুলো সরব থাকবে।
অন্য নির্মাণ ঠিকাদার আবদু সবুর সাপ্তাহিক আজকালকে বলেন, শীতের সময় যারা বাংলাদেশে যান তাদের জন্য বিষয়টি সুখের। কিন্তু যারা যেতে পারেন না তারা অলস সময় পার করেন। কেউ কেউ অন্য কাজও করেন। এ ক্ষেত্রে অনেকেই অভাবে পড়ে যান। তারা ঠিকাদারের কাছ থেকে ধার দেনা করে চলেন এবং গ্রীস্মে কাজ শুরু হলে তা ফেরত দেন।
দেশে যাওয়ার প্রস্তুতি নেয়া নির্মাণ শ্রমিক আবদুল আলিম সাপ্তাহিক আজকালকে বলেন, আমি ২৭ নভেম্বর দেশে যাচ্ছি। চার মাস দেশে থাকবো। মার্চের দিকে দেশে ফিরবো। গ্রামে গিয়ে এ চার মাস পুকুরে মাছ চাষ করব। প্রায় প্রতি বছর তাই করি। পাঁচ বছর ধরে এক বিঘা জমির উপর মাছ চাষ করে আসছি।
তিনি বলেন, নিউইয়র্কে থাকলে শীতে কাজ মেলে না। তাই দেশে যাচ্ছি। একদিকে যেমনি স্বজনদের সঙ্গে সময় কাটানো যাবে তেমনি মাছ চাষ করে কয়েক লাখ টাকা রোজগার করা যাবে।
চার্চ ম্যাকডোনাল্ডের নির্মাণ শ্রমিক ইফতেখার আহমেদ সাপ্তাহিক আজকালকে বলেন, আমি ২২ নভেম্বর দেশে যাচ্ছি। একমাত্র সন্তান স্কুলে যায়। ডিসেম্বরে স্ত্রী এবং ছেলের জন্য টিকিট রেখে যাচ্ছি। ডিসেম্বরে স্কুল ছুটি হলে ছেলেকে নিয়ে স্ত্রী দেশে যাবে। আবার তারা জানুয়ারিতে নিউইয়র্ক ফিরে আসবে।
শীততো থাকবে এপ্রিল পর্যন্ত তাহলে জানুয়ারির পর কি করবেন এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আমি এমন সময় উবার চালাই। এবারও তাই করব।
ব্রুকলিনের এভিনিউ সি’র বাসিন্দা সন্ধীপের মোহর আলী সাপ্তাহিক আজকালকে বলেন, আমি কয়েক বছর দেশে যাইনি। ডিসেম্বরের যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
তিনি সাপ্তাহিক আজকালকে বলেন, আমাকে গত তিন বছর শীতের সময় খুবই অলসভাবে কাটাতে হয়েছে। পুরো গ্রীস্মে খাটাখাটুনির পর শীতে আর কাজ করতে ইচ্ছে করে না। এখানে থাকলে খরচ বাড়ে। তাই পরিবার নিয়ে এবার দেশে যাব কয়েক মাসের জন্য। এখানে না থাকলে বাসা ভাড়া ছাড়া আর কোন খরচ নেই। দেশে কয়েক মাস বেড়ানোর পর ভারতে যাবো এবং সেখানকার কয়েকটি পর্যটন আকৃষ্ট শহর ঘুরে দেখবো।



Chief Editor & Publisher: Zakaria Masud Jiko
Editor: Manzur Ahmed
37-07 74th Street, Suite: 8
Jackson Heights, NY 11372
Tel: 718-565-2100, Fax: 718-865-9130
E-mail: [email protected]
� Copyright 2009 The Weekly Ajkal. All rights reserved.