মঙ্গলবার , ২৫ জুন ২0১৯, Current Time : 2:58 am




গ্রেফতার হচ্ছেন মিজান-মোয়াজ্জেম

সাপ্তাহিক আজকাল : 13/06/2019

ডিআইজির বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন ১৫ মাস ধরে ধামাচাপা, অভিযোগ প্রমাণিত হলেও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি, দেশেই ওসি মোয়াজ্জেম, বাসিরের জায়গায় নতুন তদন্ত কর্মকর্তা

গ্রেফতার হচ্ছেন পুলিশের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমান ও ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেন। ক্ষমতার অপব্যবহার এবং শৃঙ্খলা পরিপন্থী কর্মকান্ডে জড়িত এবং সর্বশেষ দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) ঘুষ প্রদানের বিষয়ে নিজের স্বীকারোক্তির কারণেই আইনের আওতায় নেওয়া হচ্ছে ডিআইজি মিজানকে। তবে গত ১৫ মাস আগে পুলিশ সদর দফতরের উচ্চ পর্যায়ের অনুসন্ধান কমিটির প্রতিবেদনে ডিআইজি মিজানের শৃঙ্খলা পরিপন্থী ও ক্ষমতার অপব্যবহারের বিষয়টি প্রমাণিত হলেও তাতে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় বিস্ময় প্রকাশ করছেন খোদ পুলিশ কর্মকর্তারাই। অন্যদিকে, বহুল আলোচিত ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহানের হত্যার ঘটনায় ভিডিও ফাঁসের অপরাধে ওসি মোয়াজ্জেমকে গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছেন খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। গতকাল কারা অধিদফতরে উদ্ভাবনী মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সাংবাদিকদের বলেছেন, পুলিশের ডিআইজি মিজান ঘুষ কেন দিয়েছে? নিশ্চয়ই তার কোনো দুর্বলতা আছে। তা না হলে সে ঘুষ কেন দেবে? তার বিরুদ্ধে আগের অভিযোগের বিচার এখনো প্রক্রিয়াধীন। এর মধ্যে আবার ঘুষ কেলেঙ্কারি। ঘুষ দেওয়া-নেওয়া দুটোই অপরাধ। ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনের দেশের বাইরে যাওয়ার সব পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যে কোনো সময় সে গ্রেফতার হবে।

জানা গেছে, সরকারী কর্মচারী শৃঙ্খলা বিধিমালা ১৯৮৫ অনুসারে কারও বিষয়ে শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ার পরপরই অনতিবিলম্বে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে। তবে গত মাস ধরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পুলিশ সদর দফতরের প্রতিবেদন জমা হওয়ার পরও ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় তার ক্ষমতার উৎস নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। কেউ কেউ বলছেন, ডিআইজি মিজানের ক্ষমতার কাছে সবকিছুই তুচ্ছ। তবে শিগগিরই ঘুষ প্রদান নিয়ে ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে দুদক। অপরাধ বিশেষজ্ঞ এবং পুলিশ সদর দফতরের একাধিক কর্মকর্তা বলছেন, ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে পুলিশ সদর দফতরের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিবেদনে অপরাধের প্রমাণ থাকলে দ্রুততর সময়ের মধ্যে বিভাগীয় ব্যবস্থা শুরু হওয়ার কথা। তবে ১৫ মাস ধরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিভাগীয় ব্যবস্থা শুরু না করায় নানা ধরনের প্রশ্ন উঠাই স্বাভাবিক। সর্বশেষ তো ডিআইজি মিজান নিজেই ঘুষ দেওয়ার বিষয়ে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। দ বিধি অনুসারে তো তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা হওয়ার কথা। এক্ষেত্রে বাদী হবে খোদ রাষ্ট্র। ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারি, জোর করে বিয়ে এবং হত্যার হুমকিসহ নানা অপরাধ সম্পর্কিত অভিযোগ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর ঘটনার অনুসন্ধানের জন্য পুলিশ সদর দফতরের তৎকালীন অতিরিক্ত মহাপরিচালক (এফঅ্যান্ডটি) বর্তমানে অতিরিক্ত আইজিপি (প্রশাসন) মইনুর রহমান চৌধুরীর নেতৃত্বে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা ছিলেন, তৎকালীন ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার বর্তমানে অতিরিক্ত আইজিপি (এফঅ্যান্ডটি) শাহাব উদ্দিন কোরেশী ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) বিশেষ পুলিশ সুপার মিয়া মাসুদ করিম। এই কমিটি গত বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০৩ পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদন পুলিশ সদর দফতরে জমা দেওয়ার কয়েকদিনের মধ্যেই তা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, ‘ডিআইজি মিজানুর রহমান একজন দায়িত্বশীল ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা হয়ে সরকারি দায়িত্বের বাইরে জনৈক নারীর সঙ্গে অতিমাত্রায় ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন। যার ফলে কোনো মেয়ের সঙ্গে বিবাহবহির্ভূত অনৈতিক সম্পর্ক, জোর করে তুলে নেওয়া, বিবাহ ও প্রতারণা করার মতো প্রশ্ন উত্থাপিত হয়েছে। যা বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা, ইলেকট্রনিক মিডিয়া ইত্যাদিতে ফলাও করে প্রচারিত ও প্রকাশিত হয়। এতে পুলিশ বিভাগ তথা সরকারের ভাবমূর্তি দারুণভাবে ক্ষুণœ হয়েছে। তার এহেন আচরণ অকর্মকর্তাসুলভ, যা অসদাচরণ হিসেবে পরিগণিত।’
কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়, মিজানুর রহমান নিজে সরকারি গাড়িতে উপস্থিত থেকে সংবাদপাঠিকাকে তার বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার পথে প্রগতি সরণিতে গাড়ির ভিতর হাতাহাতি ও বাকবিত ার একপর্যায়ে তিনি সংবাদপাঠিকাকে চড় মেরেছিলেন। সংবাদপাঠিকা লাঞ্ছিত হয়ে প্রগতি সরণির নদ্দা ট্রাফিক সিগন্যালের কাছে ডিআইজি মিজানের গাড়ি থেকে নেমে চিৎকার করেন। এতে লোকজন এগিয়ে এলে মিজানুর রহমান গাড়িসহ আটকা পড়েন। এ সময় তিনি নিজেকে ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার পরিচয় দিলে ট্রাফিক পুলিশ ও সাদা পোশাকের পুলিশের সহায়তায় নিরাপদে স্থান ত্যাগ করেন। ঘটনার ভিডিওচিত্র ইলেকট্রনিক প্রচার মাধ্যমে এবং প্রিন্ট মিডিয়ায় ফলাও করে প্রকাশ ও প্রচার হয়, যা পুলিশ বিভাগ ও সরকারের ভাবমূর্তিকে দারুণভাবে ক্ষুণœ করেছে। ডিআইজি মিজানের গাড়িচালক গিয়াস উদ্দিন ও অর্ডারলি জাহাঙ্গীর আলমেরও অপরাধে সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে প্রমাণ পায় তদন্ত কমিটি। গাড়িচালক এটিএসআই গিয়াস উদ্দিন ও বাসার অর্ডারলি এএসআই জাহাঙ্গীর আলমকে ডিএমপি থেকে সরিয়ে অন্যত্র পোস্টিংসহ বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়। জানা গেছে, কেবলমাত্র গিয়াস ও জাহাঙ্গীরকে বদলি করে দায়িত্ব পালন করে পুলিশ সদর দফতর। তাদের বিরুদ্ধে কোনো বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

নতুন অনুসন্ধান কর্মকর্তা মঞ্জুর : ডিআইজি মিজানের জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের বিষয়ে অনুসন্ধানের জন্য পরিচালক মঞ্জুর মোর্শেদকে নতুন করে দায়িত্ব দিয়েছে দুদক। একই সঙ্গে দুদকের মহাপরিচালক (বিশেষ তদন্ত) সাঈদ মাহবুব খানকে বিষয়টির তদারক কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে। দুদকের উপপরিচালক ঋত্বিক সাহা স্বাক্ষরিত চিঠিতে গতকাল এ তথ্য জানা গেছে। চিঠিতে মঞ্জুর মোর্শেদকে এনামুল বাসিরের কাছ থেকে অনুসন্ধান নথি বুঝে নিতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে বিধি অনুযায়ী অনুসন্ধান শেষ করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তাকে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া মিজানের বিষয়ে অনুসন্ধানের সময় প্রাপ্ত তথ্য, নথি ও সবধরনের রেকর্ডপত্র অনুসন্ধান কর্মকর্তা মঞ্জুর মোর্শেদের কাছে হস্তান্তর করতে এনামুল বাসিরকে নির্দেশ দিয়েছে কমিশন। এদিকে, দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, ঘুষ গ্রহণের কারণে নয় বরং তথ্য পাচারের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের পরিচালক খন্দকার এনামুল বাসিরকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গতকাল দুদকের প্রধান কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ এলেই তাকে গ্রেফতারের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়তে পারে না দুদক। ঘুষের বিষয় নিয়ে মিডিয়ায় ভুলভাবে তথ্য এসেছে। তথ্য টুইস্ট করা হয়েছে।

অন্যদিকে, বরখাস্ত হওয়া পরিচালক খন্দকার এনামুল বাসির বলেছেন, গণমাধ্যমে আমাকে নিয়ে ভুল, মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর তথ্য পরিবেশন করা হয়েছে। এতে আমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। সংবাদ প্রকাশে তারা যাচাই-বাছাইয়ের প্রয়োজন মনে করছে না। গতকাল দুদকের প্রধান কার্যালয়ে তিনি সাংবাদিকদের কাছে গণমাধ্যমের বিষয়ে এ অভিযোগ করেন।

‘দেশেই আছে ওসি মোয়াজ্জেম’

দেশেই আছেন ওসি মোয়াজ্জেম এ দাবি খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর। তিনি বলেছেন, তার বাইরে যাওয়ার সব পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যে কোনো মুহূর্তে তাকে গ্রেফতার করা হবে। এ ছাড়া, গতকাল পুলিশ সদর দফতরের অপরাধ পর্যালোচনা সভায় মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে নির্দেশ দিয়েছেন আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী। যদিও এরই মধ্যে তাকে পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে এমন খবরে সায় দেয়নি পুলিশ সদর দফতর।

চলতি বছরের ৬ এপ্রিল সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাতকে নৃশংসভাবে আগুনে পোড়ানোর পর ১০ মে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এর আগে থানায় ওসির কাছে দেওয়া তার বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেন তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম। এ ঘটনায় ওসির বিরুদ্ধে মামলা হয় ঢাকায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে। ওই মামলায় ২৭ মে বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনাল এই পুলিশ কর্মকর্তাকে গ্রেফতারে পরোয়ানা জারি করে। – বিডি প্রতিদিন



Chief Editor & Publisher: Zakaria Masud Jiko
Editor: Manzur Ahmed
37-07 74th Street, Suite: 8
Jackson Heights, NY 11372
Tel: 718-565-2100, Fax: 718-865-9130
E-mail: [email protected]
� Copyright 2009 The Weekly Ajkal. All rights reserved.