বুধবার , ২২ মে ২0১৯, Current Time : 1:42 am




নামযজ্ঞ মহোৎসবে মেতেছিলেন সনাতন ধর্মালম্বীরা

সাপ্তাহিক আজকাল : 12/05/2019

নিউইয়র্ক
শ্রীকৃষ্ণ ভক্ত সংঘ, ইউএসএর উদ্যোগে গত ৫ মে উদয়াস্ত নামযজ্ঞ মহোৎসব উদ্যাপিত হয় কুইন্সের গীতা মন্দিরে (দিব্যধাম)। মহাপ্রভুর ধরাধামে আবির্ভাবের ৫৩৩ তম বার্ষিকী উদ্যাপন উপলক্ষে শ্রীকৃষ্ণ ভক্তসংঘ, ইউএসএ নিয়মিতভাবে ২০০১ সাল থেকে প্রতিবছর এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। কীর্তনে সর্বমোট ২০টি দল নামসুধা পরিবেশন করে। কীর্তনীয়া দলগুলো রঙ্গীন ও বাহারী পোশাকে সু-সজ্জ্বিত হয়ে নামসূধা পরিবেশন করে। কীর্তনীয়া দল সমূহের সাথে যোগাযোগ ও সার্বিক পরিচালার দায়িত্বে ছিলেন শ্রী রবীন্দ্র কুমার শীল।
ইসকন, বাংলাদেশ হিন্দু মন্দির, শ্রীশ্রী গৌর নিতাই সংঘ, শ্রীমদ্ভগবদ গীতা সংঘ – ইউএসএ, ব্রজগোলাপ সম্প্রদায় (ভক্ত সংঘ), রাধাকৃষ্ণ সম্প্রদায়- কলেজ পয়েন্ট- নিউইয়র্ক, সনাতনী সেবা সংঘ – ব্রঙ্কস, রাধাকৃষ্ণ সেবক সংঘ – ব্রঙ্কস, সনাতন সেবাশ্রম ফাউন্ডেশন, রাধামাধব মন্দির – ব্রুকলিন, মাতৃ ভক্ত সংঘ – ইউএসএ, ওম শক্তি মন্দির, শ্রীশ্রী ঠাকুর অনুকুল চন্দ্র সৎ সংঘ –ইউএসএ, শ্রীশ্রী সার্বজনীন গীতা সংঘ – ওজোন পার্ক, মহামায়া মন্দির, বাংলাদেশ পূজা সমিতি, বাংলাদেশ পূজা উদ্্যাপন পরিষদ, হরিচাঁদ গুরুচাঁদ মতুয়া মিশন – নিউইয়র্ক, বিদ্যাধাম পঞ্চতত্ত্ব গীতা পীঠ ও স্বাগতিক শ্রীকৃষ্ণ ভক্ত সংঘ, ইউএসএ। দল সমূহকে কীর্তন মঞ্চে উঠানোর দ্বায়িত্ব পালন করেন সুশীল কুমার সাহা ও দীলিপ কুমার নাথ।
শনিবার সন্ধ্যায় শ্রীশ্রী রাধাকৃষ্ণ ও পঞ্চতত্বের পূজা এবং অধিবাস কীর্তনের মাধ্যমে কীর্তন উৎসব ও শ্রী বিগ্রহের প্রাণ প্রতিষ্ঠা করা হয়। পূজায় পৌরহিত্য করেন শ্রীমৎ জগদীশ ব্রহ্মচারী মহোদয়। পূজা ব্যবস্থাপনায় ও সহযোগীতায় ছিলেন সুধন্য সেন, জয়শ্রী রায়, শিপ্রা রায়, সবু নাথ, হেনা আচার্য্য, মহাভোগ নিবেদন করেন শান্তি লতা সাহা, অধিবাস কীর্তনের প্রধান দ্বায়িত্ব পালন করেন প্রবাসের বিশিষ্ট কীর্তনীয়া শ্রী মানিক রায়, সঙ্গতে ছিলেন শ্রী স্বপন বণিক, অজিত চন্দ, রাম দেবনাথ, দিলীপ বিকাশ দন্ড, প্রদীপ ভট্টাচার্য্য, নারায়ন দেবনাথ, শংকর বিশ্বাস, সহদেব তালুকদার সহ অসংখ্য ভক্ত। মৃদঙ্গে সঙ্গত করেন পরেশ নাথ ও উৎস মনি দেবনাথ, বাঁশীতে নারায়ন বর্মন।
অধীবাস কীর্তন উপলক্ষে ১২০৬ তম গীতা সন্ধ্যায় পরম ভক্ত শ্রী রাম দেবনাথ দ্বাদশ অধ্যায় ‘ভক্তিযোগ’ থেকে আস্বাদন করেন।
মালা জপে পর্যায়ক্রমে অংশ নেন প্রফুল্ল অধিকারী, সুশীল কুমার সাহা, বিমলাচরণ রায়, রূপকুমার ভৌমিক, রবীন্দ্র কুমার শীল, দিলীপ নাথ, প্রকৌশলী রঞ্জিত রায়, সুরেশ চন্দ্র রায়, সুধন্য সেন, রঞ্জন ভট্টচার্য্য, শ্যামল মল্লিক, শান্তি লতা সাহা, মমতা দেবী ভৌমিক, শম্পা রায়, অঞ্জলি সরকার, অজিত চন্দ, জয়শ্রী বণিক, দিবাকর রায়, শোভারাণী খাসকেল, জয়শ্রী রায়, প্রদীপ ভট্টাচার্য্য, নারায়ন চন্দ্র দেবনাথ, দিলীপ বিকাশ দন্ড, মিনাক্ষী রাণী ঘোষ ও সুশান্ত ঘোষ।
কীর্তনের কুঞ্জ নির্মানের দায়িত্বে ছিলেন প্রকোশলী রঞ্জিত রায়, অজিত চন্দ, তরুন সাহা, অনিল চন্দ, সুরেশ রায়, সুকান্ত দাস টুটুল, ইন্দ্রজিত মজুমদার ও সুভাস কুমার সাহা।
মহাপ্রসাদ ব্যবস্থাপনায় ছিলেন মহেশ্বর দাস, প্রণব কুমার রায় রনো, অর্ধেন্দু কিশোর বিশ্বাস, অমল কুন্ডু, সুভাস কুমার সাহা, রঞ্জন ভট্টাচার্য্য, শ্যামল মল্লিক, সুকান্ত দাস টুটুল, জয়শ্রী রায়, শিপ্রা রায়, হেনা আচার্য্য, রতœা দে রায়, মঞ্জু রাণী সেন, মমতা রানী দেবী ভৌমিক, অঞ্জলী সরকার, অনিমা দত্ত, প্রতিমা শীল, কল্পনা শীল, ছবি মহাজন, আশারানী শীল, কল্পনা সাহা, ছন্দারানী মজুমদার, তপতী পোদ্দার, নমিতা পাল, পাপড়ী শীল, লক্ষ্মী শীল, সন্ধ্যা ভৌমিক, রঞ্জিতা অধিকারী, করুনা সিন্ধু পাল, রূপকুমার ভৌমিক, বিমলাচরণ রায়, সুশীল কুমার সাহা, সুব্রত শীল, ইন্দ্রজিত মজুমদার ও সুরঞ্জন বণিক।
প্রসাদ স্পন্সর করেন বিদ্যাধাম পঞ্চতত্ত্ব গীতা পীঠ, কল্যান শিকদার ও তার পরিবার, বিষ্ণু সাহা ও তার পরিবার ও চন্দন সুবর্ণা কর্পোরেশন (চন্দন সেনগুপ্ত)।
আপ্যায়নে ছিলেন সর্বশ্রী বিমলাচরণ রায়, রঞ্জন ভট্টাচার্য্য, সুশীল কুমার সাহা, রূপকুমার ভৌমিক, সুরেশ রায়, সুধন্য সেন, দিলীপ নাথ, অঞ্জণ ভট্টাচার্য্য, রঞ্জিত রায়, তরুন সাহা, সুরঞ্জন বণিক, অমল কুন্ডু, রঞ্জিত দে, প্রশান্ত দেবনাথ।

মহোৎসবকে সর্বাঙ্গীনভাবে সুন্দর ও কৃষ্ণভক্তিতে পূর্ণতা দানের মাধ্যমে সফলতা দেয়ার জন্য সকল কীর্তনীয়া দল, ধর্মীয় সংগঠন, শ্রীকৃষ্ণ ভক্ত সংঘের সকল সদস্য, সর্বোপরি প্রবাসের সকল ভক্ত সজ্জনকে ধন্যবাদ জানান কীর্তন মহোৎসব কমিটির আহ্বায়ক অনিল চন্দ, কার্যকরী কমিটির সভাপতি সুভাস কুমার সাহা ও পরিচালনা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সুরেশ চন্দ্র রায়।



Chief Editor & Publisher: Zakaria Masud Jiko
Editor: Manzur Ahmed
37-07 74th Street, Suite: 8
Jackson Heights, NY 11372
Tel: 718-565-2100, Fax: 718-865-9130
E-mail: [email protected]
� Copyright 2009 The Weekly Ajkal. All rights reserved.